মাধ্যমিক 2020 পশ্চিমবঙ্গের ফলাফল ও প্রথম দশের মেধা তালিকা

পশ্চিমবঙ্গ মধ্য শিক্ষা পর্ষদ গত বুধবার, ১৫ জুলাই মধ্যমিক পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেছে। এ বছর মোট মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল মোট ১০০৩৬৬৬ জন; তারমধ্যে সফল পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৮৬.৩৪ শতাংশ হারে মোট ৮৪৩৩০৫ জন। যা এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ পাসের হার রেকর্ড করেছে। গত বছর পাসের হার ছিল ৮৬.০৭ শতাংশ।

এই বছর ছাত্রদের পাসের হার ৮৯.৮৯ শতাংশ এবং ছাত্রীদের পাসের হার ৮৩.৮৪ শতাংশ।

এই বছর মধ্যমিক পরীক্ষায় ৬৯৪ (৯৯.১৪%) নম্বর পেয়ে প্রথম হয়েছেন মেমারি বিদ্যাসাগর মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউট (পূর্ব বর্ধমান) এর অরিত্র পাল।

৬৯৩ নম্বর পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন ২ জন; তারা হলেন ওন্দা হাইস্কুল (বাঁকুড়া) এর সায়ন্তন গড়াই, ও কাটোয়া কাশীরাম দাস ইনস্টিটিউশন (পূর্ব বর্ধমান) এর অভীক দাস।

৬৯০ নম্বর পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন ৩ জন; তারা হলেন কেন্দুয়াডিহি হাইস্কুল (বাঁকুড়া) এর সৌম্য পাঠক, ভবানীচক হাইস্কুল (পূর্ব মেদিনীপুর) এর দেবস্মিতা মহাপাত্র এবং রহড়া রামকৃষ্ণ মিশন (উত্তর ২৪ পরগনা) এর অরিত্র মাইতি।

৬৮৯ নম্বর পেয়ে চতুর্থ হয়েছেন ১ জন বীরভূম জেলা স্কুল (বীরভূম) এর অগ্নিভ সাহা।

৬৮৮ নম্বর পেয়ে পঞ্চম হয়েছেন ৪ জন; তারা হলেন অঙ্কিত সরকার, বংশীহারী হাইস্কুল (দক্ষিণ দিনাজপুর), স্বস্তিক সরকার, বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল হাইস্কুল (পূর্ব বর্ধমান), রশ্মিতা সিংহ মহাপাত্র, বিক্রমপুর আরডি হাইস্কুল (বাঁকুড়া), বিভাবসু মণ্ডল, গোরাবাজার ঈশ্বরচন্দ্র ইনস্টিটিউশন (মুর্শিদাবাদ)। 

৬৮৭ নম্বর পেয়ে ষষ্ঠ হয়েছেন ১২ জন; তারা হলেন রিঙ্কিনী ঘটক, শিলিগুড়ি গার্লস হাইস্কুল (দার্জিলিং), সুনৃত সিংহ, রায়গঞ্জ করোনেশন হাইস্কুল (উত্তর দিনাজপুর), অর্চিষ্মান সাহা, বীরভূম জেলা স্কুল (বীরভূম), রাজিবুল ইসলাম, বীরভূম জেলা স্কুল (বীরভূম), সৌনক বিশ্বাস, বাঁকুড়া ক্রিশ্চিয়ান কলেজিয়েট স্কুল (বাঁকুড়া), সৃজন সাহা, বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল হাইস্কুল (পূর্ব বর্ধমান), সোহম দাস, চন্দননগর কানাইলাল বিদ্যামন্দির (হুগলি), প্রিন্স কুমার সিংহ, পুরুলিয়া রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যাপীঠ (পুরুলিয়া), অরিজিৎ প্রহরাজ, দক্ষিণচক হাইস্কুল (পূর্ব মেদিনীপুর), সপ্তর্ষি জানা, জ্ঞানদীপ বিদ্যাপীঠ (পূর্ব মেদিনীপুর), অস্মি চৌধুরী, অশোকনগর বাণীপীঠ গার্লস হাইস্কুল (উত্তর ২৪ পরগনা), সৌহার্দ্য পাত্র, খড়িয়া ময়নাপুর হাইস্কুল (হাওড়া)।

৬৮৬ নম্বর পেয়ে সপ্তম হয়েছেন ১৭ জন; তারা হলেন করণ দত্ত, মন্দিরনাথ হাইস্কুল (কোচবিহার), ঋতম বর্মন, গোপালনগর এমএসএস হাইস্কুল (কোচবিহার), সোহম তামাং, মালদহ জেলা স্কুল (মালদহ), শুভদীপ চন্দ্র, রামপুরহাট জিতেন্দ্রলাল বিদ্যাভবন (বীরভূম), অরণি চট্টোপাধ্যায়, বীরভূম জেলা স্কুল (বীরভূম), অরিত্র মাজি, বিবেকানন্দ শিক্ষা নিকেতন হাইস্কুল (বাঁকুড়া), সাগ্নিক মিশ্র, কেন্দুয়াডিহি হাইস্কুল (বাঁকুড়া), শৌভিক সরকার, বর্ধমান সিএমএস হাইস্কুল (পূর্ব বর্ধমান), সুহা ঘোষ, চন্দননগর কৃষ্ণভাবিনী নারী শিক্ষা মন্দির (হুগলি), দিব্যকান্তি ঘড়ুই, গৌরহাটি হরদাস ইনস্টিটিউশন (হুগলি), সম্প্রীতি কুণ্ডু, বদনগঞ্জ শ্রী শ্রী সারদামণি গার্লস হাইস্কুল (হুগলি), রিচিক সামন্ত, ব্যবতারহাট আদর্শ হাইস্কুল (পূর্ব মেদিনীপুর), পিয়াস প্রামাণিক, কোলাঘাট থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্ট হাইস্কুল (পূর্ব মেদিনীপুর), অনুষ্টুপ দাস, দক্ষিণচক হাইস্কুল (পূর্ব মেদিনীপুর), দেবাক্ষ সিদ্ধান্ত, কান্দি রাজ হাইস্কুল (#মুর্শিদাবাদ), সাহিত্য মণ্ডল, সারদা বিদ্যাপীঠ হাইস্কুল (দক্ষিণ ২৪ পরগনা), সৈয়দ মহম্মদ তামিম, বেণুপালচক হাইস্কুল (দক্ষিণ ২৪ পরগনা)।

৬৮৫ নম্বর পেয়ে অষ্টম হয়েছেন ১১ জন; তারা হলেন বরুণাদিত্য সাহা, জলপাইগুড়ি জেলা স্কুল (জলপাইগুড়ি), নাজনিন আজাদ, বামনগড় এইচ এম এ এম হাইস্কুল (মালদহ), মহম্মদ তাহিনুজ্জামান, সিহোল হাইস্কুল (মালদহ), সুপ্রতীক পণ্ডিত, দেউলপাড়া ভূধারীনাথ বিদ্যানিকেতন (হুগলি), অঙ্কিতা ঘোষ, গড়রাইপুর গার্লস হাইস্কুল (বাঁকুড়া), শুভঙ্কর মাইতি, দাপপুর বিবেকানন্দ হাইস্কুল (পশ্চিম মেদিনীপুর), সৌম্যপ্রভ দে, কোলাঘাট থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্ট হাইস্কুল (পূর্ব মেদিনীপুর), মহাঞ্জন দেবনাথ, বহরমপুর জগন্নাথ অ্যাকাডেমি (#মুর্শিদাবাদ), মঞ্জুস হালদার, বনগাঁ হাইস্কুল (উত্তর ২৪ পরগনা), অয়ন ঘোষ, দমদম বিদ্যানাথ ইনস্টিটিউশন (উত্তর ২৪ পরগনা), সৌম্যদীর সর্দার, দক্ষিণ বারাসত শিবদাস আচার্য হাইস্কুল (দক্ষিণ ২৪ পরগনা)।

৬৮৪ নম্বর পেয়ে নবম হয়েছেন ১০ জন; তারা হলেন শ্রেয়া সরকার, সুনীতিবালা সর্দার গার্লস হাইস্কুল (জলপাইগুড়ি), অঙ্কিতা মণ্ডল, বার্লো গার্লস হাইস্কুল (মালদহ), অয়নদীপ শান্নিগ্রাহী,, বিবেকানন্দ শিক্ষা নিকেতন হাইস্কুল (বাঁকুড়া), সাবর্ণ হাটি, সোনামুখী বিন্দুবাসিনী জুবিলি হাইস্কুল (বাঁকুড়া), অনুশ্রী ঘোষ, আসানসোল উমারানি গড়াই মহিলা কল্যাণ গার্লস হাইস্কুল (পশ্চিম বর্ধমান), উর্জশী মণ্ডল, কাটোয়া দুর্গাদাসী চৌধুরানি গার্লস হাইস্কুল (পূর্ব বর্ধমান), শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, মঙ্গলদা বিএনজে হাইস্কুল (পুরুলিয়া), তন্ময় বার, দুবদা বীরেন্দ্র বিদ্যাপীঠ (পূর্ব মেদিনীপুর), শুভদীপ বৈদ্য, সারদা বিদ্যাপীঠ হাইস্কুল (দক্ষিণ ২৪ পরগনা), সায়ক বণিক, সারদা বিদ্যাপীঠ হাইস্কুল (দক্ষিণ ২৪ পরগনা)।

৬৮৩ নম্বর পেয়ে দশম হয়েছেন ২৩ জন তারা হলেন সম্প্রীতি রায়, মহারানি ইন্দিরাদেবী বালিকা বিদ্যালয় (কোচবিহার), অয়ন শেঠ, রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দির (মালদহ), দেবাঞ্জন দে, রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দির (মালদহ), সায়ন কর্মকার, রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দির (মালদহ), রূপসা সাহা, বালুরঘাট হাইস্কুল (দক্ষিণ দিনাজপুর), জুনেইদ হাসান, বিকেটিপিপি প্রবীর সেনগুপ্ত বিদ্যালয় (বীরভূম), দেবাত্রেয় দাস, বিবেকানন্দ শিক্ষা নিকেতন হাইস্কুল (বাঁকুড়া), শঙ্খশুভ্র চট্টোপাধ্যায়, রামহরিপুর রামকৃষ্ণ মিশন হাইস্কুল (বাঁকুড়া), অঙ্কন পাত্র, বিষ্ণুপুর হাইস্কুল (বাঁকুড়া), অঙ্কন দাস বৈরাগ্য, শাসপুর ডিএনএস ইনস্টিটিউশন (বাঁকুড়া), প্রভাত দত্ত, সোনামুখী বিন্দুবাসিনী জুবিলি হাইস্কুল (বাঁকুড়া), শেখ পারভেজ জিত , বনপাস শিক্ষা নিকেতন (পূর্ব বর্ধমান), দেবায়ূধ ঘোষ, বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল হাইস্কুল (পূর্ব বর্ধমান), অন্বেষা ভট্টাচার্য, ভৈরবনালা এসকেইউএস হাইস্কুল (পূর্ব বর্ধমান), শ্রীপর্ণা খাসপুরী, কাটোয়া দুর্গাদাসী চৌধুরানি গার্লস হাইস্কুল (পূর্ব বর্ধমান), অদ্বিতীয়া পাণ্ডে, মহানদ হাইস্কুল (হুগলি), তৃষ্ণা সরকার, গোঘাট ভগবতী বালিকা বিদ্যালয় (হুগলি), সায়ন বিশ্বাস, পুরুলিয়া রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যাপীঠ (পুরুলিয়া), সোহম মাইতি, জ্ঞানদীপ বিদ্যাপীঠ (পূর্ব মেদিনীপুর), চয়নিকা মুর্মু, প্রণবানন্দ বিদ্যাপীঠ গার্লস হাইস্কুল (#মুর্শিদাবাদ), প্রয়াংশু দাস, শ্রীচন্দ্র এম এন মেমোরিয়াল হাইস্কুল (দক্ষিণ ২৪ পরগনা), সাগ্নিক মুখোপাধ্যায়, উত্তরপাড়া চিল্ড্রেনস ওন হোম (হুগলি), মেঘা মণ্ডল, উত্তরপাড়া মডেল স্কুল (হুগলি)।