কবিতা :- স্বপ্ন

স্বপ্ন
নরেন্দ্রনাথ হাঁসদা

সেই আদিম এর ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে,
স্বপ্ন দেখতে দেখতে কখন ঘুমিয়ে
পড়েছিলাম, মনে নেই!
সেই লাখ টাকার স্বপ্ন?
না! তবে কি সেই পুরনো দিনের স্বপ্ন
আবার প্রতিফলিত হয়ে দেখা দিচ্ছে,
তাও না! স্বপ্ন দেখছিলাম তোমার।
স্বপ্ন দেখতে শুরু করলাম সেদিন,
বেশিদিন হয়নি ,তোমার জন্য 
আগের সবকিছু ভুলে গেলাম ।
সেদিন শুধু তোমাকে দেখে—
প্রখর রৌদ্রে শুষ্ক নিপীড়িত নিস্তেজ,
মৃতপ্রায় বীজ থেকে আবার অঙ্কুরিত হল আশা। হতভাগা অভাগার এ আবার কি আশা—-
হতে পারে , সামান্য খড়ের ধোঁয়ায় অভাগীর স্বর্গ লাভ।
তারও তো সেই আশা ছিল,
তবে কি আবার আমারও স্বর্গে যাবার সাধ,
না নরকে?
ভোর হয়ে সকাল হলো, শিমুল গাছের ডালে বসা কোকিলের ডাকে হঠাৎ ঘুম ভেঙে গেল।
ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেল টুকরো টুকরো
আমার সেই লাখ টাকার স্বপ্ন!
না, ভুল বললাম ——
স্বপ্ন ! যা দেখছিলাম।
জেগে দেখলাম শিমূলের মরা ডালে,
কোকিল ডাকছে,
মনে পড়ে গেল আমার কথা,
হ্যাঁ ঠিক তাই তো; কোকিলটি আমার
মতোই ——–একা ।
না!একটু পরে দেখলাম
সেই ডালে এল এ কোকিলা,
ক্ষণিকের জন্য কুহু কূজন রবে
ভরে গেল প্রকৃতি ——
আন্দোলিত হয়ে উঠল শিমুল গাছের
সমস্ত ডালপালাগুলো,
ঠিক যেন সবাই আনন্দ পেলো।
আমার কিন্তু ঠিক তার উল্টো হলো
স্বপ্ন ! শুধু স্বপ্নই রয়ে গেলো।