সাঁওতালি মাধ্যমের প্রথম স্থানাধিকারি আজও অপেক্ষায়

আরসাল ডেস্কঃ রাজ্যে উচ্চমাধ্যমিকের রেজাল্ট আউট হওয়ার সাথে সাথে কৃতি ছাত্র-ছাত্রীদের শুভেচ্ছা সম্বর্ধনা দিয়ে উৎসাহিত করা হচ্ছে। কিন্তু সাঁওতালি ভাষার ইতিহাস সৃষ্টি করা ছাত্র-ছাত্রীদের কেউ খবর নিল না। বিশ্বের ইতিহাসে প্রথম সাঁওতালি মাধ্যমে পড়াশোনা করে উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ হল রাজ্যর ১৪৩ জনের মধ্যে ১৩৯ জন ছাত্র ছাত্রী । তাদের মধ্যে প্রথম স্থানাধিকারি ছাত্র আজও অবহেলিত রয়ে গেল।
আধিকারিক জনপ্রতিনিধি সকলে ব্যস্ত। একটু সময় করে কেউ দেখা করল না। জানতে চাইল না তার জীবন সংগ্রামের কথা। আর্থিক অবস্থার কথা।
হ্যাঁ , এবারের উচ্চমাধ্যমিকে সাঁওতালি মাধ্যমের টপার অমরদ্বীপ টুডুর কথা বলছি।
তার মুখ থেকে শুনেছি পাঠ্য পুস্তক, শিক্ষকের অভাবকে দাঁতে দাঁত চিপে সহ্য করতে হয়। শ্রমজীবী মা বাবার কষ্টকে মন সান্ত্বনা দিতে হয়।
এরপর?
জানে না ৪৪০ নম্বর পেয়ে পাস করা প্রথম স্থানাধিকারি ছাত্র। তবে তার স্বপ্ন ভূগোল নিয়ে পড়বে। শিক্ষক হবে। পরিবেশ তার ভালো লাগে। গ্লোবাল ওয়ার্মিং ভাবায়। পরিবেশের উপর কাজ করতে চায়।
চাঁদড়া কল্যাণ সংঘ হরিজন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকে কৃতির কথায় আশা করি এবার সরকার সময়ে পরিকাঠামোর বন্দোবস্ত করবে।