পশ্চিমবঙ্গে সাঁওতালি মাধ্যমের জন্য কলেজ অনুমোদন ও শিক্ষক নিয়োগের জন্য আবেদন

গত 22 শে জুলাই “পশ্চিমবঙ্গ সাঁওতাল শিক্ষক সংগঠন” এর পক্ষ থেকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী কে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। সাঁওতালি মাধ্যমে ২০২০ সালের উচ্চ মাধ্যমিক উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন কলেজে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ভর্তি ও পঠন পাঠনের জন্য এবং শিক্ষক নিয়োগের জন্য আবেদন করা হয়েছে।

ভারতবর্ষের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সাঁওতালি মাধ্যমে পঠন-পাঠনের দাবিতে দীর্ঘ আন্দোলনের ফলে ২০০৭-০৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে পশ্চিমবঙ্গে সাঁওতালি মাধ্যমে পড়াশোনা শুরু হয়। ২০১৮ সালে পশ্চিমবঙ্গ মধ্যশিক্ষা পর্ষদ পরিচালিত প্রথম সাঁওতালি মাধ্যমিক পরীক্ষায় সাঁওতাল ছাত্র-ছাত্রীরা উত্তীর্ণ হয় এবং উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ পরিচালিত প্রথম সাঁওতালি মাধ্যমে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগের বিভিন্ন বিষয়ে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীরা ভালোভাবে উত্তীর্ণ হয়েছে। সাঁওতাল সম্প্রদায়ের ছাত্রছাত্রীরা উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষা শুরু করেছে।

এমতাবস্থায় পশ্চিমবঙ্গ সরকার পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষা দপ্তর থেকে এখনো পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের কোন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় ২০২০ সালের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীরা কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ভর্তি হতে পারবে এবং উচ্চ শিক্ষা লাভ করতে পারবে তা অনিশ্চিত যদি কোন কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীদের ভর্তি না হতে পারে তাহলে শিক্ষা ক্ষেত্রে তাদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত এবং মাতৃভাষার মাধ্যমে উচ্চশিক্ষা লাভ থেকে তারা বঞ্চিত হবে।

পশ্চিমবঙ্গের কলেজগুলিতে যাতে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীরা ভর্তি হতে পারে এবং কলেজে শিক্ষক নিয়োগ করা হয় তার সুব্যবস্থা করার জন্য পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষক সংগঠনের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

যে কলেজগুলিতে সাঁওতালি মাধ্যমে পঠন পাঠনের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে সেগুলি হল ১) খাতড়া আদিবাসী মহাবিদ্যালয়, খাতড়া, বাঁকুড়া ২) শালতোড়া নেতাজি সেনটিনারি মহাবিদ্যালয়, শালতোড়া বাঁকুড়া ৩) রাইপুর মহাবিদ্যালয়, রাইপু্র,‌ বাঁকুড়, ৪) শিলদা চন্দ্রশেখর মহাবিদ্যালয়, শিলদা, ঝাড়গ্রাম,  ৫) সুবর্ণরেখা মহাবিদ্যালয় গোপীবল্লভপুর ঝাড়গ্রাম, ৬) সাঁওতাল বিদ্রোহ সার্ধ শতবার্ষিকী মহাবিদ্যালয়, গোয়ালতোড়, পশ্চিম মেদিনীপুর।