আবহাওয়ার খবর:- ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস

কলকাতা: কলকাতা ও দুই ২৪ পরগনায় বজ্রবিদ্যুৎসহ বৃষ্টির পূর্বাভাস। সঙ্গে বইবে ঝোড়ো হাওয়া। ৩০-৪০ কিলোমিটার বেগে বইতে পারে ঝোড়ো হাওয়া। কয়েক ঘণ্টার মধ্যে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস। গতকালও কলকাতা ও দুই ২৪ পরগনা সহ বেশ কিছু অঞ্চলে বৃষ্টি হয়েছিল। সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া। আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, গত কয়েকদিন ধরেই দিনের বেলায় রাজ্য তাপমাত্রা বেশি থাকছে, সেই সঙ্গে আর্দ্রতা। এরজন্যই বজ্রগর্ভ মেঘের সঞ্চার হচ্ছে। তার ফলেই এই ঝড়বৃষ্টি। বলাই বাহুল্য, সারাদিনের প্রচণ্ড গরমের পর এই ঝড়-বৃষ্টি খানিক স্বস্তি এনে দিতে পারে।

অসহ্য গরমে খানিক স্বস্তি এসেছে মেদিনীপুর শহরে। কিছুক্ষণ আগে সেখানে ঝড়-বৃষ্টি হয়েছে।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, উত্তর আন্দামান সাগর ও পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে শনিবার(২২ মে) নাগাদ একটি নিম্নচাপ তৈরি হতে পারে। সেই নিম্নচাপ পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে, শক্তিসঞ্চয় করে পরিণত হতে পারে ঘূর্ণিঝড়ে। ঘূর্ণিঝড় উত্তর-পশ্চিম অভিমুখী হয়ে, ২৬ মে, বুধবার পৌঁছতে পারে পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশা উপকূলে। তার জেরে ২৫ তারিখ, অর্থাত্, মঙ্গলবার সন্ধে থেকে দুই রাজ্যের উপকূল এলাকায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি শুরু হতে পারে।

এবারের ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে যশ। নামকরণকারী দেশ ওমান। আবহাওয়া দফতররের অনুমান, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব পড়তে পারে পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘা, শঙ্করপুর সমুদ্র সৈকতে। অন্যদিকে, ওড়িশার বালেশ্বর উপকূলেও ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়তে পারে।তবে, এর সঙ্গে বর্ষা আগমনের কোনও সম্ভাবনা নেই।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, এবার নির্ধারিত সময়ের একটু আগেই কেরলে বর্ষা আসতে পারে। ১ লা জুনের বদলে, ৩১শে মে-তেই বর্ষা ঢুকে যাবে। আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জেও ২২শে মে-র বদলে, ২১ তারিখই বর্ষার আগমনের সম্ভাবনা। সেই হিসাব মতো, একটু আগে এরাজ্যেও বর্ষা ঢুকে যেতে পারে।

তবে, আগামী কয়েক দিন অস্বস্তিকর গরম থাকবে দক্ষিণবঙ্গে। কিছু জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে বজ্রবিদ্যুত্ সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা। উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে বৃষ্টি বাড়বে।